এখন পড়ছেন
খবর

১১টি পয়েন্টে অবস্থান নেবে, বাধা দেয়ার অভিযোগ

দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ঢাকার দিকে আসতে শুরু করেছে হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মী-সমর্থকরা। ৫ মে ‘ঢাকা অবরোধ’ কর্মসূচিতে অংশ নিতে ব্যক্তিগত ও সাংগঠনিক উদ্যোগে তারা ঢাকায় জড়ো হচ্ছেন বলে জানা গেছে। এদিকে বিভিন্নভাবে বাধা দেয়ার অভিযোগ তুলে হেফাজতে ইসলামের নেতারা বলেছেন, বাধা দিয়ে ঢাকা অবরোধ কর্মসূচি ঠেকানো যাবে না।

আগামীকাল রবিবারের এই অবরোধ কর্মসূচিকে সামনে রেখে বৃহস্পতিবার রাত থেকেই হেফাজতের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের গাড়ির বহর ঢাকা অভিমুখে যাত্রা শুরু করেছে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

হেফাজতের সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী জানান, শুধুমাত্র চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকা থেকেই দুই শতাধিক বাস শুক্রবার ঢাকায় পৌঁছেছে। রবিবারের মধ্যে আরও কয়েকশত বাস চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় আসবে। গত ৬ এপ্রিল ঢাকা অভিমুখে লংমার্চ কর্মসূচিতে চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন অংশ থেকে হেফাজতের লোকজন ঢাকা পৌছাতে না পারায় এবার দু’দিন আগেই তারা ঢাকায় আসা শুরু করেছেন বলে তিনি জানান।

Lalbug_03_05_2013_1হেফাজতের নেতারা জানান, ‘ঢাকা অবরোধ’ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে সারাদেশ থেকে রাজধানীমুখী সবগুলো প্রবেশপথে ৫ মে সকাল ৬টা থেকে অবস্থান নেবেন হেফাজতের নেতাকর্মী-সমর্থকরা।

প্রাথমিকভাবে ১১টি পয়েন্টে অবস্থান নেয়ার কথা জানিয়েছে হেফাজত সূত্র। পয়েন্টগুলো হচ্ছে- রাজধানী ঢাকার শহরতলি কাঁচপুর, সাইনবোর্ড, যাত্রাবাড়ী, ডেমরা, সদরঘাট, পোস্তগোলা ব্রিজ, বাবুবাজার ব্রিজ, গাবতলী, আমিনবাজার, টঙ্গী, গাজীপুর চৌরাস্তা।

অবরোধের দিন প্রথমে ঢাকা থেকে তুলনামূলক কম দূরত্বের জেলা নারায়ণগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, কুমিল্লা, গাজীপুর, নরসিংদী, ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল থেকে নেতাকর্মী-সমর্থকরা অবরোধ কর্মসূচিতে অংশ নেবে। পরে দূরের অঞ্চল থেকে নেতাকর্মী-সমর্থকরা এসে তাদের সাথে যোগ দেবে। কেন্দ্রীয় নির্দেশ না পাওয়া পর্যন্ত তারা সেখানে অবস্থান করবে।

কর্মসূচির ব্যাপারে ইতোমধ্যে জেলা পর্যায়ের দায়িত্বশীলদের বিস্তারিত নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

সংগঠনটি বিভিন্ন প্রচারণায় কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলা হচ্ছে, কর্মসূচিতে অংশ নেয়ার সময় সাথে জায়নামাজ, তসবিহ, কালেমা খচিত পতাকা, শুকনা খাবার, পানি ইত্যাদি সাথে রাখার জন্য।

এদিকে শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে রাজধানীর লালবাগে সংগঠনটির অস্থায়ী কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে হেফাজতে ইসলামের ঢাকা মহানগরীর আহ্বায়ক মাওলানা নূর হোসেন কাসেমী ৫ মে’র ‘ঢাকা অবরোধ’ কর্মসূচির প্রস্তুতি নিয়ে বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, “কোনো বাধাতেই অবরোধ কর্মসূচি ঠেকানো যাবে না।”

সারাদেশে বিক্ষোভ-মিছিল: ঢাকা অবরোধ’ কর্মসূচির সমর্থনে সারাদেশে জুমা নামাযের পর বিক্ষোভ-মিছিল করেছে হেফাজতে ইসলাম। তবে চট্টগ্রাম মহানগরীতে তাদের এ কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে। চট্টগ্রামের হেফাজত নেতারা জানায়, চট্টগ্রাম থেকে ঢাকার দিকে নেতাকর্মী-সমর্থকদের যাত্রার সুবিধার্থে এবং মহানগরীতে একটি সংগঠনের সমাবেশ থাকায় সম্ভাব্য বিশৃঙ্খলা এড়াতে শুক্রবারের বিক্ষোভ-মিছিল স্থগিত করা হয়।

১৩ দফা দাবি সফলে অবরোধ কর্মসূচির সমর্থনে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে মিছিল করেছে হেফাজতে ইসলাম। এদিকে রাজধানীর নাবিস্কোসহ কয়েকটি স্থানে শানে রেসালত সমাবেশ করেছে সংগঠনটি।

আল্লামা শফী ঢাকায়: হেফাজতের একটি সূত্র জানায়, ৫ মে (রোববার) ঢাকা অবরোধ কর্মসূচিতে অংশ নিতে সংগঠনের আমীর আল্লামা শাহ আহমদ শফী একটি অগ্রবর্তী দলকে নিয়ে চট্টগ্রামের হাটহাজারী থেকে শুক্রবার সন্ধ্যায় ঢাকায় পৌঁছেছেন।

কর্মসূচির আগের দিন (শনিবার) সরকারের পক্ষ থেকে হেফাজতের নেতাকর্মীদের ঢাকা আসতে বাধা বা প্রতিবন্ধকতা করা হতে পারে, এমন আশঙ্কায় সারাদেশ থেকে নেতাকর্মী-সমর্থকরা ব্যক্তিগত ও সাংগঠনিক উদ্যোগে ঢাকায় আসতে শুরু করেছেন। ইতোমধ্যে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী-সমর্থক ঢাকায় পৌঁছে গেছেন বলেও খবর পাওয়া গেছে।

হেফাজতের সংবাদ সম্মেলন: হেফাজতে ইসলামের ঢাকা মহানগর কমিটির আহ্বায়ক নূর হোসাইন কাশেমী বলেছেন, “এটা সরকার পতনের কোনো আন্দোলন নয়। কিন্তু সরকার এ আন্দোলনকে পদে পদে যেভাবে বাধাগ্রস্থ করা হচ্ছে, তাতে তারা নিজেরাই জনগণের প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়াচ্ছে।”

শুক্রবার সকালে লালবাগস্থ কার্যালয়ে হেফাজতে ইসলাম ঢাকা মহানগর কমিটির আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। সম্মেলনের মূল বক্তব্য পাঠ করেন ঢাকা মহানগর আহবায়ক মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী।

হেফাজতের ঘোষিত ঢাকা অবরোধ কর্মসূচি সর্বাত্মক প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে উল্লেখ করে নূর হোসাইন কাশেমী বলেছেন, “ইতোমধ্যেই হাজার হাজার তৌহিদী জনতা ঢাকার দিকে রওনা দিয়েছেন। আরো লাখ লাখ মানুষ ঢাকা অভিমুখে আসার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন।”

তিনি বলেন, “আমাদের আন্দোলন অহিংস, অসহিংস। আমরা শান্তিপূর্ণ, নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনে বিশ্বাসী। বিগত সময়ের সবকটি কর্মসূচি বিশেষত ৬ এপ্রিল লংমার্চ পরবর্তী মহাসমাবেশে আমরা তা অক্ষরে অক্ষরে প্রমাণ করে দেখিয়েছি।”

সরকার কর্মসূচি বানচালের চেষ্টা করছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “বর্তমান সরকার আমাদের কর্মসূচিগুলো বাধাগ্রস্ত ও বানচাল করার জন্য বিভিন্ন উপায়ে হরতাল-অবরোধ, যানবাহন চলাচল বন্ধ করেও ব্যর্থ হয়েছে। অবরোধ কর্মসূচিতে দেশব্যাপী স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সরকার দলীয় ক্যাডাররা নানানভাবে হুমকি-ধমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে। কিন্তু আমরা সরকারকে জানিয়ে দিতে চাই, ১৩ দফা মেনে নিন। ভয়ভীতির মাধ্যমে আল্লাহ ও রাসূল (সা.) প্রেমিকদের দমানো যাবে না।”

সংখ্যালঘুর ওপর আক্রমনকারীরা ইসলামের ‘দুশমন’ উল্লেখ করে হেফাজত নেতা বলেন, “সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপরে যেসব দুর্বৃত্তরা বিভিন্ন ছদ্মবেশে হামলা ও হাঙ্গামা করছে তারা হেফাজতে ইসলামের দুশমন। এদের রুখে দাঁড়ানো ঈমানী দায়িত্ব।”

নারী শ্রমিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, “ ১৩ দফা বাস্তবায়ন হলে আপনাদের অধিকার সংরক্ষিত হবে। দেশে শ্রমিকদের বিশেষত নারী শ্রমিকদের ওপর চরম অন্যায় ও নির্যাতন চালানো হচ্ছে। ইসলাম শ্রমিকদের যে অধিকার দিয়েছে, তা বাস্তবায়িত হলে এদেশে মালিক শ্রমিকের বৈষম্যের নিরসন হবে।”

সাভার ট্রাজেডির সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে তিনি বলেন, “সাভার ট্রাজেডির সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, নিহতদের পরিবারকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ, আহতদের সুচিকিৎসা এবং পঙ্গুদের স্থায়ীভাবে নিরাপদ জীবন যাপনের ব্যবস্থা করে দেয়ার জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবি জানাচ্ছি।”

সরকার ও বিরোধী দলের সংলাপ নিয়ে তিনি বলেন, “দেশের স্বার্থে সরকার ও বিরোধীদল এক হয়ে সিদ্ধান্ত নেবে, এটাই দেশবাসীর প্রত্যাশা। কিন্তু এর মাধ্যমে হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা পাশ কাটানোর কোন সুযোগ নেই।”

ঢাকা মহানগরের সর্বস্তরের মানুষকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, “৫ মে সারাদেশ থেকে আগত অবরোধকারীদের ৬ এপ্রিলের মত অভ্যর্থনা ও আপ্যায়নের জন্য এগিয়ে আসুন।”

পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত সর্বস্তরের জনগণকে সেদিন (৫ মে) ফজরের আগেই ঢাকার সবকয়টি প্রবেশপথ বন্ধ করে অবস্থানের আহ্বানও জানান তিনি।

গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার সম্প্রতি হেফাজতে ইসলামকে ‘পিশাচের দল’ বলেছে, সাংবাদিকরা এর প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে হেফাজতের নেতারা বলেছেন, “আমরা এ ব্যাপারে কোনো কথা বলতে চাই না। তবে ভদ্র মানুষের ভাষা ভদ্রচিত হয়।”

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস, ঢাকা মহানগর উপদেষ্টা মাওলানা আব্দুল লতিফ নেজামী, কেন্দ্রীয় যুগ্মমহাসচিব মুফতি ফয়জুল্লাহ, মাওলানা মঈনুদ্দীন রুহী, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী।

অবরোধে যান চলাচল বন্ধ রাখার আহ্বান: ৫ মে সব যানবাহন বন্ধ রাখার আহ্বান জানিয়ে সংবাদ সম্মেলনে নূর হোসাইন কাশেমী বলেন, “পরিবহন মালিক ও শ্রমিক ভাইরা, ঢাকা অবরোধ কর্মসূচিকে সফল করতে ৫ মে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ রাখবেন।”

উল্লেখ্য, ইসলাম ও মহানবী (সা.)-কে নিয়ে কটূক্তিকারীদের শাস্তিসহ ১৩ দফা দাবিতে ৬ এপ্রিল ঢাকায় লংমার্চ সমাবেশ করেছিল হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। ওই সমাবেশ থেকেই এপ্রিল মাসব্যাপী দেশের সব বিভাগে শানে রেসালত মহাসমাবেশ ও ৫ মে ‘ঢাকা অবরোধ’ কর্মসূচির ঘোষণা দেয়া হয়।

Advertisements

আলোচনা

কোন মন্তব্য নেই এখনও

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

হেফাজতে ইসলামের খবর

https://banglargangai.wordpress.com/wp-admin/widgets.php#available-widgets

ফরহাদ মজহারের কলাম

Join 253 other followers