এখন পড়ছেন
খবর

প্রধানমন্ত্রীর কথায় বিভ্রান্ত না হয়ে অবরোধ সফল করুন: আল্লামা শফী

52952_b4প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের আমীর আল্লামা আহমদ শফী।

গতকাল সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনে দেয়া বক্তব্যের তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া তিনি এ আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা দাবি সম্পর্কে গ্রহণযোগ্য কোন মত ও দিক-নির্দেশনা পাওয়া যায়নি। বরং বিভিন্ন বিষয়ে তার বক্তব্যে স্ববিরোধী ভুল ব্যাখা ও পাশ কাটিয়ে যাওয়ার মাধ্যমে জাতিকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টাই ছিল লক্ষ্যণীয়। সে কারণেই আমরা আল্লাহর পের ভরসা রেখে ৫ই মে ঢাকা অবরোধ কর্মসূচি যথারীতি বহাল রাখার প্রত্যয় ঘোষণা করছি। আমরা ধর্মপ্রাণ দেশপ্রেমিক মানুষকে কোন রকম বিভ্রান্তির শিকার না হয়ে পূর্ণ উদ্যোম ও প্রস্তুতি নিয়ে ঢাকা অবরোধ কর্মসূচিতে অংশ নেয়ার আহবান জানাচ্ছি।

তিনি বলেন, সাভারের মর্মান্তিক ঘটনায় উদ্ধার কাজ ও অসহায়দের পাশে দাঁড়ানোর ব্যাপারে সর্বাত্মক অংশ গ্রহণ করেছি আমরা। মানবিক বিবেচনায় আমাদের এই তৎপরতা সবসময় অব্যাহত থাকবে। সুতরাং সাভার ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত লাশবাহী গাড়ি, এম্বুলেন্স, উদ্ধার তৎপরতায় নিয়োজিত সর্বপ্রকার যানবাহন, দেশী-বিদেশী পরিদর্শকদের গাড়িসহ এ জাতীয় সব রকম যানবাহন অবরোধের আওতা মুক্ত থাকবে।

আল্লামা শফী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে ১৩ দফা মেনে নেয়ার কোন রকম সিদ্ধান্ত ও নিশ্চয়তা পাওয়া যায়নি। উল্টো দাবির বিষয়ে কিছু বিভ্রান্তিকর কথাই উঠে এসেছে। এতে ঢাকা অবরোধ কর্মসূচি স্থগিতের মতো কোন রকম উপাদান নেই বলেই প্রতীয়মান হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে স্ব-বিরোধিতার বহু নজির ফুটে উঠেছে। সরকারের পক্ষ থেকে বারবার ‘সংবিধানবিরোধী’ ও ‘সম্পূর্ণ অগ্রহণযোগ্য’ বলার পরও তিনি বিভিন্ন দফার পয়েন্ট উল্লেখ করে সেসব দফার পক্ষে প্রচলিত আইনে কি কি ধারা-উপধারা রয়েছে তা-ও উল্লেখ করেছেন। একই সঙ্গে ভুল ও অসত্য ব্যাখ্যার আশ্রয় নিয়ে দফাগুলোর অযৌক্তিকতা তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন। প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে সংবিধানে ‘আল্লাহর ওপর পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস’ পুনঃস্থাপনের বিষয়টি পাশ কাটিয়ে ‘রাষ্ট্র ধর্ম’ ও ‘বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম’ উল্লেখ থাকার কথা বললেও ওই মৌলিক গুরুত্বপূর্ণ বাক্যটি পুনঃস্থাপন নিয়ে কোন প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেননি। বরং ওই ঈমানী বাক্যটি পুনঃস্থাপনের বিষয়ে তার অনীহা ও অনিচ্ছার কথাই তুলে ধরেছেন। মনে রাখা দরকার যে, ‘রাষ্ট্রধর্ম’ ও ‘বিসমিল্লাহর’ সম্পর্ক আমলের সঙ্গে। আর ‘আল্লাহর উপর আস্থা ও বিশ্বাস’-এর সম্পর্ক বিশ্বাস ও আক্বীদার সঙ্গে। ওই বিশ্বাস ও আস্থা বাদ দিলে মুমিনের কোন আমলেরই কোন গ্রহণযোগ্যতা থাকে না। প্রধানমন্ত্রী ইসলাম অবমাননা ও কটূক্তি বিষয়ে প্রচলিত ‘ধর্ম অবমাননা আইন’ ‘স্পেশাল পাওয়ার এক্ট’ এবং ‘তথ্য প্রযুক্তি আইনের’ ধারায় বর্ণিত শাস্তির কথা তুলে ধরলেও সর্বোচ্চ শাস্তির আইন প্রণয়ন বিষয়ে কোন কথা বলেননি। তিনি এ জন্য তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে কমিটি করার আশ্বাসবাণী শোনালেও সেই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রীর বক্তব্যে ‘৪২ বছরে ইসলাম অবমাননার কোন ঘটনাই ঘটেনি’ এ জাতীয় কথা বারবার গণমাধ্যমে আসছে। এ জাতিয় উদ্যোগের বাস্তবতা নিয়ে কোনভাবেই সন্দেহমুক্ত থাকা যায় না। একই সঙ্গে এরই মধ্যে গ্রেপ্তরকৃত ৪জন ইসলাম বিদ্বেষী ব্লগারের বিরুদ্ধেও বিদ্যমান আইনে কঠোর কোন ধারায় মামলা করা হয়নি এবং তাদের দৃষ্টিকটু আদর আপ্যায়ন রাখা হয়েছে বলে জানা গেছে। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে আলেম-ওলামা, ইমাম, খতীব ও মাদরাসার ছাত্রদের হয়রানি, হুমকির বিষয়টির সম্পর্কে অজ্ঞতা প্রকাশ করা হলেও বাস্তবতা সম্পূর্ণ ভিন্ন। আন্দোলনরত প্রায় দশ জন আলেমকে হত্যা করা হয়েছে। বহু আলেম খতীবকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে, বহু মাদরাসা বাধ্যতামূলক বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ঢাকাসহ দেশজুড়ে আলেম ও আন্দোলনরত ধর্মপ্রাণ মানুষকে হয়রানি করা হয়েছে এবং এখনও করা হচ্ছে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী সুনির্দিষ্ট অভিযোগ দায়েরের ভিত্তিতে ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিলেও সত্য এটাই যে, এসবের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে স্থানীয় প্রশাসনের পাশাপাশি সরকার দলীয় এমপি, নেতা ও সংগঠনভুক্ত কর্মীরাই ঘটনাগুলো ঘটিয়ে চলেছে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী ভাস্কর্য ও মূর্তির মাঝে ব্যবধান তৈরী করে যে ব্যাখ্যা দিয়েছেন, তার সঙ্গে ইসলামের অবস্থান ও নীতির কোন সম্পর্ক নেই। তাই এটা একটি বিভ্রান্তকর বক্তব্য। তিনি কোন কোন আরব দেশের উদাহরণ টেনে বলেছেন, ইসলাম ভাস্কর্যকে উৎকর্ষ দান করেছে। এটাও ইসলামের শিল্পনীতি সম্পর্কে একটি ভুল ব্যাখ্যা। তিনি নারীনীতি, নারী-অধিকার, অশ্লীলতা, ব্যভিচার ইত্যাদি বিষয়ে ইসলামী অনুশাসনের ব্যাপক প্রশংসা করেছেন। আবার নারীনীতির ইসলামের সঙ্গে সংঘর্ষিক ধারার বিষয়ে সম্পূর্ণ পাশ কাটিয়ে গেছেন। হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফার কোন একটি দাবিও মানা হয়নি এবং মানার কোন প্রতিশ্রুতিও ব্যক্ত করেননি। অতএব হেফাজতে ইসলামের অবরোধ ও আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

Advertisements

আলোচনা

কোন মন্তব্য নেই এখনও

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

হেফাজতে ইসলামের খবর

https://banglargangai.wordpress.com/wp-admin/widgets.php#available-widgets

ফরহাদ মজহারের কলাম

Join 253 other followers