এখন পড়ছেন
খবর

মাহমুদুর রহমান গণমাধ্যমের স্বাধীনতার প্রতীকে পরিণত হয়েছেন

image_39074দেশবরণ্যে লেখক, সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবী, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ও রাজনীতিকরা বলেছেন, আমার দেশ সম্পাদক মাহমুদুর রহমান এখন গণমাধ্যমের স্বাধীনতার প্রতীকে পরিণত হয়েছেন।

তারা বলেন, তিনি বর্তমান মহাজোট সরকারের সীমাহীন দুর্নীতি, লুটপাট, অত্যাচার, নির্যাতন ও  নিপীড়নের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন এবং দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের রক্ষার পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন বলেই সরকার তাকে গ্রেপ্তার করেছে।

বক্তারা অভিযোগ করেন, ‘আইন ও আদালতকে কোনো প্রকার তোয়াক্কা না করে সরকার দৈনিক আমার দেশের  ছাপাখানায় তালা দিয়ে পত্রিকাটির প্রকাশনা বন্ধ করে দিয়েছে।’

তারা বলেন, বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে মাহমুদুর রহমান এদেশের কিংবদন্তি সাংবাদিক আবদুস সালাম, জহুর হোসেন চৌধুরী এবং তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়ার সমতুল্য হয়েছেন।

বক্তারা বলেন, ‘তার ওপর বর্তমান ফ্যাসিবাদী সরকার যে নির্যাতন ও নিপীড়ন করেছে তা এদেশের ইতিহাসে একটি কলঙ্কজনক অধ্যায় হিসেবে বিবেচিত হবে।’

সমাজের এই বিশিষ্ট নাগরিকরা বলেন, বর্তমান প্রেক্ষিতে এদেশের গণতন্ত্রকামী মানুষকে বসে থাকলে চলবে না। দুর্বার গণআন্দোলনের মাধ্যমে এই  সরকারের পতন নিশ্চিত করে মাহমুদুরর রহমানকে মুক্ত করতে হবে।

শুক্রবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে দৈনিক আমার দেশ ও মাহমুদুর রহমান সংহতি পরিষদ’ আয়োজিত  ‘গণমাধ্যমে স্বাধীনতা ও নাগরিক সংলাপ’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা এসব কথা বলেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক এমাজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, বর্তমান সময়ে দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব বিপন্ন এবং গণতন্ত্র সংকটাপন্ন। এমতাবস্থায় গণমাধ্যমের স্বাধীনতা অবরুদ্ধ। গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠিত না হলে দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব এবং গণমাধ্যমের স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব নয়।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, মাহমুদুর রহমান দেশের সংবাদপত্রের স্বাধীনতার জন্য স্বাধীনতার পর সবচেয়ে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। মাহমুদুর রহমানের অন্যায় আটকাদেশ ও মিথ্যা প্রত্যাহার এবং নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান তিনি।

সাভারের ঘটনাকে তিনি গণহত্যা অভিহিত করে বলেন, পরিকল্পিতভাবেই এ হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে।

জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর আহমেদ বলেন, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নেই। বর্তমানে দেশে ফ্যাসিবাদী রাজত্ব চলছে। সরকার স্বাভাবিক আচরণ করছে এটা ভাবা যাবে না।

তিনি বলেন, সরকার যখন সম্পূর্ণরূপে জনগণ থেকে গণবিচ্ছিন্ন, দুর্বল ও দিশেহারা হয়, তখন গণমাধ্যমের ওপর হামলা চালায়।

কাজী জাফর বলেন, ইতিহাস সাক্ষ্য দেয় আওয়ামী লীগ সব সময় ফ্যাসিবাদী দর্শনে বিশ্বাসী। এর আগে তারা ১৯৭৫ সালে চারটি রেখে সব পত্রিকা বন্ধ করেছিল। সব রাজনৈতিক দলকে নিষিদ্ধ করে একদলীয় বাকশাল গঠন করেছিল। ১৯৯৬ তে এসেও সেটা ভুলতে পারেনি। দৈনিক বাংলা, বিচিত্রা বন্ধ করেছিল। বর্তমানেও আমার দেশসহ অনেক গণমাধ্যম বন্ধ করা হয়েছে।

আমার দেশ প্রকাশে বাধা নেই তথ্যমন্ত্রীর এই বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, তথ্যমন্ত্রী প্রতারণামূলক বক্তব্য দিচ্ছেন। তাহলে কোনো অদৃশ্য শক্তি ছাপাখানা তালা দিল? আইন না মেনে ৭২ ঘন্টার আগেই প্রেসে অভিযান, মাহমুদুর রহমানের মায়ের নামে মামলা করা হলো। মাহমুদুর রহমানকে রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতন করা হলো।

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া বলেন, সরকার পুলিশ ও আদালতকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করছে। স্কাইপি সংলাপ প্রচারের পর বিচারপতির পদত্যাগের পর উচিত ছিল বিচারপতির বিরুদ্ধে সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল গঠন করা। তা না করে তাকে পুরস্কৃত করা হয়েছে।

সাবেক বিচারপতি আবদুর রউফ বলেন, ‘মাহমুদুর রহমানের মতো মানুষের এদেশে প্রয়োজন রয়েছে। আমি অত্যন্ত উদ্বিগ্গ্ব ছিলাম তার আমরণ অনশন নিয়ে। অনশন ভাঙার কারণে মাহমুদুর রহমানকে ধন্যবাদ জানাই।

মাহমুদুর রহমানকে বেআইনিভাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে মন্তব্য করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর ড. মনিরুজ্জামান মিঞা বলেন, স্কাইপি সংলাপ ইকোনমিস্ট পত্রিকায় প্রকাশিত হওয়ার পর বঙ্গানুবাদ করেছে আমার দেশ। সুতরাং আমার দেশ কোন অপরাধ করেনি।

নাগরিক কমিটির আহ্বায়ক ফরহাদ মজহার বলেন, মাহমুদুর রহমানের ওপর নির্যাতন নতুন কিছু নয়। এর আগেও এই সরকার মাহমুদুর রহমানকে গ্রেপ্তার করেছে এবং তার ওপর নির্মম নির্যাতন করেছে। এবার সরকার কোনো প্রকার আইন-কানুনের তোয়াক্কা না করে মাহমুদুর রহমানকে গ্রেপ্তার করেছে এবং আমার দেশের ছাপাখানায় তালা দিয়েছে।

তিনি বলেন, এটা অত্যন্ত বিপজ্জনক একটি পরিস্থিতি। এর বিরুদ্ধে নাগরিকদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। গণমাধ্যমের স্বাধীনতা রক্ষা এখন একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ। আমরা যদি গণমাধ্যমে স্বাধীনতার রক্ষা করতে না পারি তবে দেশে ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর ড. আনোয়ারুল্লাহ চৌধুরী বলেন, বর্তমান সরকার স্বৈরাচারী ফ্যাসিবাদী আচরণ করছে। এদেশে স্বৈরাচারের পরাজয় নিশ্চিত। কিন্তু স্বৈরাচারীর খুব সহজে পতন হয় না। তাকে পতন ঘটাতে হয়। এজন্য তীব্র গণআন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

দৈনিক নয়াদিগন্তের সম্পাদক আলমগীর মহিউদ্দিন বলেন, সরকার যখন গণমাধ্যমের স্বাধীনতা হরণ করে তখন তাদের পতন নিশ্চিত হয়।

জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান বলেন, বাংলাদেশে বর্তমানে স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব বলে কিছু নেই।

ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী বলেন, দেশের গণতন্ত্র নির্ভর করে সংবাদপত্রের স্বাধীনতার ওপর। কিন্তু বর্তমান সরকারের আমলে গণমাধ্যমের কোনো স্বাধীনতা নেই।

আন্তর্জাতিক সম্পর্কের বিশ্লেষক ড. তারেক শামসুর রেহমান বলেন, বর্তমান মাহজোট সরকার তাদের ক্ষমতাকে আরো দীর্ঘয়িত করতে নানা ধরনের ষড়যন্ত্র করছে। এরই অংশ হিসেবে তারা গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করছে।

এতে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ড. সদরুল আমিন, প্রখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক চাষী নজরুল ইসলাম, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (একাংশ) সভাপতি রুহুর আমিন গাজী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. ইউসুফ হায়দার, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আবদুস সামাদ, ড. মোহাম্মদ আবদুর রউফ, অধ্যাপক ড. তাজমেরী এস ইসলাম, অধ্যাপক ড. দিলারা চৌধুরী, অধ্যাপক ড. মাহফুজ পারভেজ, হেফাজত ইসলাম নেতা আবদুর রউফ ইউসুফী, সংসদ সদস্য আসিফা আশরাফি পাপিয়া ও শাম্মী আকতার, অধ্যাপক দিল রওশন জিন্নাত আরা নাজনিন, অধ্যাপক ড. বোরহান উদ্দিন খান, নিউ নেশন সম্পাদক মোস্তফা কামাল মজুমদার প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে সঞ্চালক ছিলেন বিশিষ্ট কবি, কলামিস্ট ও নজরুল গবেষক কবি আবদুল হাই শিকদার।

Advertisements

আলোচনা

কোন মন্তব্য নেই এখনও

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

হেফাজতে ইসলামের খবর

https://banglargangai.wordpress.com/wp-admin/widgets.php#available-widgets

ফরহাদ মজহারের কলাম

Join 253 other followers