এখন পড়ছেন
খবর

২৪ ফেব্রুয়ারি পুলিশের গুলিতে নিহত হন চারজন

 হেলেনা তখন বাড়ির পাশে দাঁড়িয়ে ঘটনা দেখছিল। গোলাগুলির শব্দ শুনতে পেয়ে হেলেনা দৌড়ে ঘরের ভেতর চলে যায়। কিছুক্ষণ পরেই ঘরের টিনের বেড়া ভেদ করে পুলিশের ছোড়া গুলি তার মাথার ঠিক নিচে মুখে লাগে।

হেলেনা তখন বাড়ির পাশে দাঁড়িয়ে ঘটনা দেখছিল। গোলাগুলির শব্দ শুনতে পেয়ে হেলেনা দৌড়ে ঘরের ভেতর চলে যায়। কিছুক্ষণ পরেই ঘরের টিনের বেড়া ভেদ করে পুলিশের ছোড়া গুলি তার মাথার ঠিক নিচে মুখে লাগে।

২৪ ফেব্রুয়ারি, সারা দেশ:  ২৫ ফেব্রুয়ারির মানব জমিন জানাচ্ছে আগের দিনে  হরতাল সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ ঘটেছে দিনাজপুর, ঝিনাইদহ, চাঁদপুর, বগুড়া, লক্ষ্মীপুর, চট্টগ্রামের হাটহাজারী, কক্সবাজারের পেকুয়াসহ বিভিন্নস্থানে। যানবাহনে অগ্নিসংযোগ, পুলিশের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। কোথাও কোথাও আওয়ামী লীগ কর্মীদের সঙ্গে হরতাল সমর্থকদের সংঘর্ষ ঘটেছে। রাজধানীতে হরতালবিরোধী লাঠি মিছিল করেছে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা। হরতালবিরোধী মিছিল শাহবাগ থেকে বের হয়ে প্রেস ক্লাব হয়ে দৈনিক বাংলার মোড় ঘুরে আবার শাহবাগে এসে শেষ হয়। মানিকগঞ্জে পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন চার জন, আহত হয়েছেন প্রায় অর্ধ শতাধিক।

লক্ষনীয় যে, মানব জমিন বা প্রথম আলো হরতালের কারণ জানাচ্ছে না। স্রেফ সমমনা ইসলামী দলগুলো বলে খালাস। ২৪ ফেব্রুয়ারিতে ইসলাম ও মহনবিকে নিয়ে ব্লগারদের কটুক্তির বিরুদ্ধে হরতাল ঢাকা হয়েছিল। সেদিন মানিকগঞ্জে পুলিশ শরীরে বন্দুক ঠেকিয়ে গুলি করেছিল। আমরা তার পরদিন অর্থ্যাৎ ২৫ ফেব্রুয়ারির প্রথম আলো ও মানব জমিনের রিপার্টের কিছু অংশ তুলে ধরছি।

মানিকগঞ্জ: প্রথম আলা জানায়,  আটটি ধর্মভিত্তিক দলের ডাকা গতকালের হরতালের সমর্থনে সকাল আটটার দিকে মানিকগঞ্জ-সিঙ্গাইর সড়কের গোবিন্দল বাসস্ট্যান্ডসহ ঘোনাপাড়া, বাইমাইল ও কাশিমনগর বাসস্ট্যান্ডে পিকেটিং শুরু হয়। সোয়া আটটার দিকে সিঙ্গাইর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মাজেদ খান দলীয় লোকজন নিয়ে কাশিমনগর বাসস্ট্যান্ডে গিয়ে পিকেটারদের ধাওয়া করে তাড়িয়ে দেন। হরতাল-সমর্থকেরা ধর্মের অবমাননার অভিযোগ তুলে গ্রামবাসীকে তাদের সঙ্গে যোগ দিতে বলে। পরে সবাই মিলে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের ধাওয়া করে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা সংগঠিত হয়ে সিঙ্গাইর উপজেলা সদরের বিএনপির কার্যালয়সহ দুটি দোকান ভাঙচুর করেন। লাঠিসোঁটা নিয়ে গোবিন্দল বাসস্ট্যান্ড এলাকায় গিয়ে হরতাল-সমর্থকদের ধাওয়া করেন।পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ কাঁদানে গ্যাসের শেল নিক্ষেপ করে ও রাবার বুলেট ছোড়ে।

পুলিশ জানায়, এরপর এলাকার বিভিন্ন মসজিদ থেকে মাইকে ধর্মের নামে উসকানি দিয়ে গ্রামবাসীকে জড়ো হওয়ার জন্য ডাক দেওয়া হয়। কিছুক্ষণের মধ্যেই লোকজন রামদা, টেঁটা ও বল্লম নিয়ে পুলিশ ও আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের ঘিরে ফেলে হামলা চালায়। তারা পুলিশের একটি মোটরসাইকেলসহ চারটি মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেয়। এ সময় পুলিশ গুলি ছোড়ে। একপর্যায়ে গ্রামবাসী পিছু হটে।

নিহত, আহত ও মামলা: পুলিশের গুলিতে ৪ জন নিহতসহ এক মাদ্রাসা ছাত্রী মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করছেন। আহত হয়েছেন ৩০ জন। আহতদের বেশির ভাগকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ভর্তি করা হয়েছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

গোবিন্দল এলাকার সড়কের ওপর  সকাল সাড়ে ১০টার দিকে চলছিল পুলিশ ও পিকেটারদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও গোলাগুলি। পাশেই খলিলুর রহমানের বাড়ি। তার মেয়ে হেলেনা তখন বাড়ির পাশে দাঁড়িয়ে ঘটনা দেখছিল। গোলাগুলির শব্দ শুনতে পেয়ে হেলেনা দৌড়ে ঘরের ভেতর চলে যায়। কিছুক্ষণ পরেই ঘরের টিনের বেড়া ভেদ করে পুলিশের ছোড়া গুলি তার মাথার ঠিক নিচে মুখে লাগে। পরে হেলেনাকে হাসপাতালে নেয়া হয়।

মানব জমিন জানায়, গুলিবিদ্ধ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছে আলী আকবর (১৮), লিংকন (২৫), নোয়াব আলী (১৪), সিদ্দিক (২৮), নাজিম উদ্দিন (১৮), কালূ (২০), আলমাস (৪০), দুলাল মিয়া (২২), আলমাস (৩৩), মানিক (২৬), মামুন (৩২), আনোয়ার (২৭), ওয়াজেদ (২৮), শাহিন (৩২), রুবেল (২৫), রউফ (৩৫) ও  শিশু লিটন। গুলিবিদ্ধদের মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ৯ জনকে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রথম আলোকে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য খলিলুর রহমানসহ কয়েকজন জানান, গুলিতে আলমগীর হোসেন (৩৫), শাহ আলম (২০), নাজিমুদ্দিন (২৮), নাসির উদ্দিন (২৮), মো. লিটন (১০), নওয়াব আলী (১২), হেলেনা আক্তার (১৮), মো. মামুন (১৮), আনোয়ার হোসেনসহ (৩৫) অর্ধশতাধিক ব্যক্তি আহত হন। তাঁদের মধ্যে আলমগীর, শাহ আলম ও নাজিমুদ্দিনকে সিঙ্গাইর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসকেরা মৃত ঘোষণা করেন। নাসির উদ্দিন মারা যান ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায়। আলমগীর, নাসির ও নাজিমুদ্দিনের বাড়ি গোবিন্দল গ্রামে। শাহ আলমের বাড়ি সিঙ্গাইরের জৈল্লা গ্রামে।

এছাড়া, হরতাল সমর্থকদের হাতে আহত হয়েছেন সিংগাইর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মাজেদ, সিংগাইর থানার ওসি লিয়াকত আলীসহ ১০ থেকে ১২ জন পুলিশ সদস্য। বিক্ষুব্ধ জনতা জ্বালিয়ে দিয়েছে থানার দুই এসআই-র মোটরসাইকেল। আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা আগুন ধরিয়ে দিয়েছে স্থানীয় বিএনপির কার্যালয়সহ হরতাল সমর্থকদের দুটি দোকানে।

সাভার মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাজ্জাদ রোমন জানান, পুলিশের সঙ্গে সংর্ঘষের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ৬ জনকে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতাল থেকে গ্রেপ্তার করে থানায় নেয়া হয়েছে। মানিকগঞ্জ সদর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) কামরুল ইসলাম জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। এতে গোবিন্দল গ্রামের চার-পাঁচ হাজার ব্যক্তিকে আসামি করা হবে।গ্রেপ্তার আতঙ্কে পুরুষশূন্য রয়েছে গোবিন্দল গ্রাম।

মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে হত্যা: প্রথম আলোকে নিহত নাসিরের বড় ভাই শহিদুল ইসলামসহ স্থানীয় কয়েকজন অভিযোগ করেন, আহত হেলেনা আক্তারকে নিয়ে হাসপাতালে যাওয়ার পথে পুলিশ নাসিরের মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে গুলি করে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর নাসির মারা যান। হেলেনা নাসিরের ভাবি। নিহত ব্যক্তিদের পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, তাঁরা কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন না।

মানব জমিনকে সাব্বির হোসেন শুভ নামের এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, মাদ্রাসার ছাত্ররা মিছিল করছিল। তখন পুলিশ তাদের বাধা দেয়। পরে পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে তারা মিছিল নিয়ে সামনের দিকে এগোতে থাকলে পুলিশ লাঠিচার্জ ও গুলিবর্ষণ শুরু করে। এ সময় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতা-কর্মীরাও গুলিবর্ষণ শুরু করে। তারা বাড়িতে ঢুকেও গুলি করেছে। যারা গুলিবিদ্ধ হয়েছে তারা মাঠে ক্ষেতে কাজ করছিল। তার বড় ভাই মামুনের ডান পায়ে গুলি বিদ্ধ হয়েছে।

নং নাম ঠিকানা ভিকটিম/পেশা মৃত্যুর কারণ
শাহ আলম জৈল্লা গ্রাম,  সিঙ্গাইর ধর্মভিত্তিক সমমনা দলের কর্মী পুলিশের গুলিতে
আলমগীর গোবিন্দল, সিঙ্গাইর ধর্মভিত্তিক সমমনা দলের কর্মী পুলিশের গুলিতে
নাজিম উদ্দিন গোবিন্দল, সিঙ্গাইর ধর্মভিত্তিক সমমনা দলের কর্মী পুলিশের গুলিতে
নাসির আহমেদ গোবিন্দল, সিঙ্গাইর ধর্মভিত্তিক সমমনা দলের কর্মী পুলিশের গুলিতে

 

 

 

Advertisements

আলোচনা

কোন মন্তব্য নেই এখনও

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

হেফাজতে ইসলামের খবর

https://banglargangai.wordpress.com/wp-admin/widgets.php#available-widgets

ফরহাদ মজহারের কলাম

Join 253 other followers