এখন পড়ছেন
খবর

শুধু চট্টগ্রামেই ২০৬ জন নিহত

61429_secমানবাধিকার সংগঠন অধিকার চট্টগ্রামে আয়োজিত ‘বাংলাদেশের রাজনীতিতে সহিংসতা ও মানবাধিকার’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় বক্তারা বলেছেন, বর্তমানে দেশে ভয়াবহ রাজনৈতিক সঙ্কট চলছে। বিরোধী মতাবলম্বীদের আন্দোলন কর্মসূচিতে সরকারের দমন-নিপীড়নে লাশের মিছিল বাড়ছে। রাজনৈতিক সঙ্কটের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে রাজনৈতিক সহিংসতা। ২০০৯ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ২০১২ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত শুধু চট্টগ্রাম বিভাগে রাজনৈতিক সহিংসতায় ২০৬ জন নিহত ও ১০ হাজার ৩৯৫ জন আহত হয়েছেন বলে তথ্য প্রকাশ করেছে অধিকার। চলতি বছরে এই ধারাবাহিকতা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে।অনুষ্ঠানের অন্যতম আলোচক আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, স্মরণকালের মধ্যে এত বড় রাজনৈতিক সঙ্কট হয়নি। দেশের অর্থনীতি থেকে শুরু করে গণতন্ত্র পর্যন্ত সব কিছুই আজ অস্থির। এক নির্বাচনে নির্বাচিত হয়ে একটি সরকার পাঁচ বছরের জন্য দেশ পরিচালনা করবে, এর মধ্যে সরকারের বিরুদ্ধে জনগণ কোনো কথা বলতে পারবে না- গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় এর থেকে স্ববিরোধী অবস্থান আর হতে পারে না। তিনি বলেন, ভুজপুর বাঁশখালীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় সহিংস ঘটনাগুলো জামায়াত-শিবিরের ওপর দায় চাপিয়ে পার পেতে চাচ্ছে সরকার। কিন্তু ওইসব ঘটনায় দায়ের করা মামলায় প্রতিটি এলাকার অর্ধেক মানুষকে আসামি করা হচ্ছে।

সভায় অন্য বক্তারা বলেন, দেশে রাজনৈতিক সহিংসতার সাথে এখন ধর্মীয় উন্মাদনা সৃষ্টি হয়েছে। যদিও এর সাথে রাজনীতির সংশ্লিষ্টতা আছে। এই উন্মাদনার জন্য হেফাজতে ইসলামকে দায়ী করছে সরকার কিন্তু সমানভাবে হিন্দু বৌদ্ধ ঐক্য পরিষদসহ বেশ কয়েকটি ধর্মীয় সংগঠনও ধর্মীয় উন্মাদনা ছড়াচ্ছে। হেফাজতকে নিয়েও সরকার দ্বিমুখী আচরণ করছে। একবার তাদের সাথে আলোচনায় বসছে, আবার তাদের কর্মসূচিতে রাতের বেলায় হরতাল দিচ্ছে। বিরোধী দলের অফিসে অভিযান চালিয়ে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবসহ শীর্ষ ১৪৬ জন নেতাকর্মীকে গ্রেফতারের পর ডাণ্ডাবেড়ি পরিয়ে আদালতে আনা-নেয়া। আমার দেশ সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করে পত্রিকা প্রকাশে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি গণতন্ত্র ও সংবিধানপরিপন্থী।

নগরীর একটি হোটেলে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় অন্যতম আলোচক ছিলেন নগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও নগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এ কে এম বেলায়েত হোসেন।

অধিকারের পরিচালক এ এস এম নাসির উদ্দিন এলানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অধিকারের প্রোগ্রাম অফিসার মো: আহসানুজ্জামান।  অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন- বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাজা মিয়া, সাবেক এমপি মাজহারুল হক শাহ, চেম্বার পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ, জেলা পিপি আবুল হাসেম, কাউন্সিলর রেহেনা কবির রানু, কাউন্সিলর মনোয়ারা বেগম মনি, সাংবাদিক জাহিদুল কচি, জাসদ নেতা বেলায়েত হোসেন, নগর বিএনপির সহসভাপতি আবু সুফিয়ান, গণসংহতি আন্দোলনের হাসান মারুফ রুমী, এ্যাব সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার কে এম সুফিয়ান প্রমুখ।

Advertisements

আলোচনা

কোন মন্তব্য নেই এখনও

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

হেফাজতে ইসলামের খবর

https://banglargangai.wordpress.com/wp-admin/widgets.php#available-widgets

ফরহাদ মজহারের কলাম

Join 253 other followers