এখন পড়ছেন
খবর

সরকার ও হেফাজতের মুখোমুখি অবস্থান

ঢাকা অবরোধ কর্মসূচিতে সরকার এবং হেফাজতে ইসলাম মুখোমুখি অবস্থানে চলে যেতে পারে৷ মতিঝিলের শাপলা চত্বরে হেফাজতের সমাবেশে সরকার আগের চেয়ে কঠোর অবস্থান নিতে পারে। ৬ এপ্রিলের কর্মসূচিতে সরকার দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসতে হেফাজত কর্মীদের বাঁধা দিলেও মতিঝিলে সমাবেশস্থলে বাঁধা দেয় নি। সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের কথায় ধারণা করা হচ্ছে এবার এই  সহায়তাটুকুও পাওয়া না যেতে পারে।সরকার প্রধম থেকেই অভিযোগ করছে, হেফাজত এখন বিএনপি এবং জামায়াতের ঘুঁটি হিসেবে কাজ করছে৷

লংমার্চের দিনে আওয়ামীপন্থি সংগঠনগুলোর হরতাল ও বিভিন্ন স্থানে কর্মীদের উপর নির্যাতন হেফাজতে ইসলামকে কঠোর অবস্থানে নিয়ে গেছে। এদিকে, নানা প্রতিবন্ধতা সত্ত্বেও হেফাজত ব্রাহ্মবাড়িয়া, সিলেট ও ময়মনসিংহে ব্যাপক জনসমাগম ঘটিয়ে পূর্বঘোষিত সমাবেশ সফল করেছে।

হেফাজতে ইসলাম তাদের ৫ মে’র ঢাকা অবরোধ কর্মসূচি সফল করতে ব্যাপক তৎপরতা চালাচ্ছে৷ তারা বলছে, এর মধ্যে তাদের ১৩ দফা দাবি না মানা হলে ঢাকাসহ সারা দেশ অচল করে দেয়া হবে৷ আর এর জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দিন খান আলমগীর বলেছেন, বেশি বাড়াবাড়ি করলে হেফাজতকেই অচল করে দেয়া হবে৷ শুধু সরকারের নীতি নির্ধারক নয়, স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই বলেছেন হেফাজতের দাবি অনুযায়ী ব্লাসফেমি আইন করা সম্ভব নয়৷ জবাবে হেফাজত বার বার বলছে, এই সরকার নাস্তিকদের সরকার৷ তাই সরকারকে তাদের ১৩ দফা দাবি মানতে বাধ্য করা হবে৷

জানা গেছে, এই পরিস্থিতিতে ঢাকায় বড় আকারের নারী সমাবেশের পরিকল্পনা হচ্ছে৷ আর তৈরি পোশাক শিল্পে কর্মরত নারী শ্রমিকরাও বড় আকারের ‘শো ডাউন’ করতে পারেন হেফাজতের ১৩ দফা বিশেষ করে নারী প্রগতি বিরোধী দাবির বিরুদ্ধে৷ আর এসবই হবে ৫ মে’র আগে৷ যদিও ইতিমধ্যে হেফাজত তাদের তের দফার ব্যাখ্যা দিয়েছে।

অন্যদিকে হেফাজতে ইসলামের প্রচার সচিব মাওলানা মুনীর আহমদ একটি অনলাইন সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, দেশের মহিলা মাদ্রাসার শিক্ষিকা ও ছাত্রীদের সংগঠিত করে ১৩ দফার সমর্থনে জনমত গঠনে নিয়োজিত করার প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, “১৩ দফা দাবি নিয়ে বিভিন্ন নারী সংগঠনকে উস্কানি দেয়া হচ্ছে অথচ এইসব নারী সংগঠনগুলোর চেয়েও অনেকগুণ বেশি মহিলা দেশে একটি শরীয়ত (ইসলামী বিধি বিধান) সম্মত পরিবেশ প্রত্যাশা করে।”

হেফাজতে ইসলামের প্রশিক্ষণ সম্পাদক ও চট্টগ্রামের জামেয়াতুল উলুম লালখান বাজার মাদ্রাসার পরিচালক মুফতি হারুন ইজহার জানিয়েছেন, সংগঠনের শীর্ষ পর্যায় থেকে সিদ্ধান্ত আসর পর চট্টগ্রামের মহিলা মাদ্রাসাগুলোতে ১৩ দফার সমর্থনে কাজ শুরু হয়েছে।

আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আফজাল হোসেন জানান, সরকার হেফাজতের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে৷ তবে তাদের অযৌক্তিক কোনো দাবি মানা হবে না৷ তারা যদি তাদের অযৌক্তিক দাবি আদায়ে সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে কোনো বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে, তা কঠোর হাতেই দমন করা হবে৷

তিনি বলেন, “হেফাজতের ঢাকা অবরোধ কর্মসূচিকে মোকাবেলা করতে সরকার এবং ১৪ দলও প্রস্তুতি নিচ্ছে৷ সারা দেশের নেতা-কর্মীদের সংগঠিত করা হচ্ছে, যাতে কোনো রকম বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে কেউ ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে না পারে৷”

তিনি আরো বলেন, “হেফাজতে ইসলাম যে বিএনপি জামায়াতের ঘুঁটি হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে তা এখন স্পষ্ট৷ মতিঝিলের সমাবেশেই তাদের ব্যবহার করার ষড়যন্ত্র হয়েছিল৷ তবে তা সরকার ব্যর্থ করে দিয়েছে৷ তারা ফটিকছড়িকে হরতালের সময় জামায়াত শিবিরের সঙ্গে এক হয়ে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের ওপর হামলা চালায়৷ এতে তিনজন নিহত হয়৷ এছাড়া, মসজিদের মাইক ব্যবহার করে গুজব ছড়িয়ে এই হামলা চালান হয়৷ হেফাজত এবং জামায়াত এক্ষেত্রে এক সঙ্গে কাজ করেছে বলে প্রমাণিত হয়েছে৷ এর আগে বগুড়ায়ও ‘সাঈদীকে চাঁদে দেখা গেছে’ বলে মসজিদের মাইক ব্যবহার করে গুজর ছড়িয়ে তাণ্ডব চালান হয়৷” সরকার মাদ্রাসা মসজিদতে কোনোভাবেই কোনো দল বা গোষ্ঠীর স্বার্থে ব্যবহার করতে দেবে না বলে জানান আফজাল হোসেন৷

Advertisements

আলোচনা

কোন মন্তব্য নেই এখনও

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

হেফাজতে ইসলামের খবর

https://banglargangai.wordpress.com/wp-admin/widgets.php#available-widgets

ফরহাদ মজহারের কলাম

Join 253 other followers