এখন পড়ছেন
খবর

আমার দেশ সম্পাদক মাহমুদুর রহমান ফের গ্রেপ্তার

933_1দৈনিক ‘আমার দেশ’ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে কাওরান বাজারে পত্রিকাটির কার্যালয় থেকে ডিবি পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

জানা গেছে, মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারে গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের বিচারকের স্কাইপ কথপোকথন প্রকাশ, ধর্মীয় উস্কানি দেয়া এবং রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে মাহমুদুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার মাসুদুর রহমান বলেছেন, ‘বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে আমার দেশ কার্যালয় থেকে মাহমুদুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়।’

পরে তাকে মিন্টো রোডে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে মাসুদুর রহমান বলেন, ২০১২ সালের ডিসেম্বরে স্কাইপ কথপোকথন আমার দেশ পত্রিকা প্রকাশ করার ঘটনায় উচ্চ আদালতের নির্দেশে তেজগাঁও থানায় একটি তেজগাঁও থানায় মামলা করা হয়।

ওই মামলাতেই সকালে মামুদুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

মাহমুদুরের বিরুদ্ধে সাইবার অপরাধ (আইসিটি) আইনের ৫৬ ও  ৫৭ ধারা  এবং দণ্ডবিধির ১২৪ , ১২৪ (এ) , ১২০ (বি)  ও ৫১১ ধারায় অভিযোগ আনা হবে বলেও জানান মাসুদুর রহমান।

মামলা হওয়ার পর গ্রেপ্তার করতে এতো সময় লাগলো কেন জানতে চাইলে পুলিশ উপ-কমিশনার বলেন, ‘তদন্ত করে তথ্য-প্রমাণ পাওয়ার পরই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ জন্যই সময় লেগেছে।’

মাহমুদুর রহমানকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে তাৎক্ষণিকভাবে আমার দেশ কার্যালয়ের মধ্যে বিক্ষোভ করেছেন কর্মীরা।

পত্রিকাটির জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মাহবুবুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, পুলিশ তাদের কার্যালয়ে থাকা ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরার ভিডিওফুটেজ এবং ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকের কম্পিউটার ও নথিপত্র নিয়ে গেছে।

এ সময় পুলিশ কার্যালয়ের বেশ কয়েকজনকে মারধর করে বলেও অভিযোগ করেন মাহবুবুর রহমান।

আমার দেশ পত্রিকা ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঢাকা মহানগর (উত্তর) গোয়েন্দা পুলিশের উপ-কমিশনার মোল্লা নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে ডিবির বিশেষ একটি দল সকালে আমার দেশ কার্যালয়ে এসে মাহমুদুর রহমানকে গ্রেপ্তার করে।

এরপর তাকে সাদা রঙের মাইক্রোবাসে তুলে মিন্টো রোডে নিয়ে যাওয়া হয়। এর আধা ঘণ্টা পর ডিবির ওই দলটিই পুনরায় ‘আমার দেশ’ কার্যালয়ে আসে। এ সময় তল্লাশি চালিয়ে মাহমুদুর রহমানের ব্যবহৃত ল্যাপটপ, কয়েকটি পেন ড্রাইভ, দুটি হার্ডডিস্ক, একটি সিপিইউ জব্দ করে নিয়ে যায়।

এরআগে সকাল সাড়ে ৮টা থেকে সাদা পোশাকে বিপুলসংখ্যক ডিবি আমার দেশ কার্যালয় ভবনের নিচে অবস্থান নেয়। পৌনে ৯টার দিকে তারা আমার দেশ কার্যালয়ে প্রবেশ করে। সে সময়ে মাহমুদুর রহমান চা পান করছিলেন। ডিবি তাকে গ্রেপ্তার করতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি আপনাদের সঙ্গে যাব, সমস্যা নেই। আমাকে কয়েকটি মিনিট সময় দেন নফল নামাজ, কিছু বই আর পোশাক নিয়ে নেই।’

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, তবে মাহমুদুর রহমানকে সে সময় দেয়া হয়নি। পরে তিনি শুধুমাত্র পবিত্র কোরআন শরীফ হাতে করে পুলিশের সঙ্গে বের হয়ে আসেন।

এরআগে আমার দেশ কার্যালয়ে প্রবেশের সময় পত্রিকাটির স্টাফরা পুলিশকে বাধা দিলে বেশ কয়েকজনকে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সর্বশেষ আমার দেশ কার্যালয় বিএসইসি ভবনের নিচে বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে অব্যাহতভাবে গ্রেপ্তারের হুমকির মধ্যেই মাহমুদুর রহমানকে বৃহস্পতিবার সকালে গ্রেপ্তার করা হলো। এখানে তিনি দীর্ঘদিন ধরে অবস্থান করছিলেন।

এরআগে গত ২৩ ফেব্রুয়ারি জামায়াতে ইসলামীসহ ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলের আন্দোলনে উস্কানি দেয়ার অভিযোগে দৈনিক ‘আমার দেশ’ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে শাহবাগ ও পল্টন থানায় পাঁচটি মামলা দায়ের করে পুলিশ।

এসব মামলায় আসামির তালিকায় জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান, নায়েবে আমির হামিদুর রহমান আজাদ এবং ইসলামী ছাত্রশিবিরের সভাপতি দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী ও সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মদ আবদুল জব্বারসহ সমমনা ১২ ইসলামী দলের শীর্ষ নেতারাও আসামি রয়েছেন।

২০১০ সালের ২ জুন ভোরে মাহমুদুর রহমানকে পত্রিকার কার্যালয় থেকে প্রথম গ্রেপ্তার করা হয়। পরে পুলিশি কাজে বাঁধা দেয়ার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে ওইদিনই একটি মামলা দায়ের করা হয়। আমার দেশ পত্রিকা বন্ধ করে দেয়া হয়।

ওই বছরের ১৯ আগস্ট সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ আদালত আবমাননার দায়ে তাকে ৬ মাসের কারাদণ্ড ও এক লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক মাসের কারাদণ্ড দেন। এ মামলায় তিনি ৭ মাস কারাভোগ করে ২০১১ সালের ১৭ মার্চ মুক্তি পান।

উল্লেখ্য, মাহমুদুর রহমান ২০০৮ সালে আমার দেশ পত্রিকার ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব নেন। ওই সময় থেকেই তিনি ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

Advertisements

আলোচনা

কোন মন্তব্য নেই এখনও

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

হেফাজতে ইসলামের খবর

https://banglargangai.wordpress.com/wp-admin/widgets.php#available-widgets

ফরহাদ মজহারের কলাম

Join 253 other followers