এখন পড়ছেন
খবর

১৪৪ ধারার মধ্যে মুখোমুখি হচ্ছে তৌহিদী জনতা ও জাগরণ সমাবেশ

চট্টত্রাম১৩  মার্চের হরতাল প্রত্যাহারের আহ্বানে সাড়া দেননি মাওলানা শফী। ফলে চট্টগ্রামে মুখোমুখি হচ্ছে হেফাজতে ইসলাম ও গণজাগরণ মঞ্চ। এর আগে এই সমাবেশকে কেন্দ্র করে ডাকা পাল্টাপাল্টি সমাবেশ ও হরতালের কারণে জাগরণ সমাবেশের স্থান লালদীঘির ময়দান থেকে প্রেসক্লাবে পরিবর্তন করা হয়েছে। এছাড়া বিশেষ নিরাপত্তার মাধ্যমে ইমরান এইচ সরকারকে চট্টগ্রামে নেয়া হবে বলে জানা গেছে। এছাড়া চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাদা দলের শিক্ষকরা একই দিনে বিশ্ববিদ্যালয়ে জাগরণ সমাবেশ না করার অনুরোধ জানিয়েছে।

পাল্টাপাল্টি সমাবেশ ডাকায় বন্দরনগরীর প্রেসক্লাব চত্বর, রেল স্টেশন চত্বর এবং জেলা পরিষদ মার্কেট চত্বরে আগামী বুধবার ভোর ছয়টা থেকে রাত ১২ টা পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি করেছে স্থানীয় প্রশাসন। সোমবার রাতে এক আদেশে ১৪৪ ধারা জারির ঘোষণা দেওয়া হয়। চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের (সিএমপি) অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার বনজ কুমার মজুমদার বলেন, ‘একইস্থানে দুইটি সংগঠন সমাবেশ ডাকায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কায় বুধবার ভোর ৬টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত তিনটি স্থানে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।’

হেফাজতে ইসলামের আমীর, বাংলাদেশ ক্বওমী মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড (বেফাক) সভাপতি এবং দারুল উলূম হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী বলেছেন, ওলী-আউলিয়া ও পীর-মাশায়েখের পূণ্যভূমি চট্টগ্রামের পবিত্র মাটিতে ইসলামের দুশমন আল্লাহ্-রাসূল (স.) এর প্রতি জঘন্য কটূক্তিকারী শাহবাগী নাস্তিকদেরকে কোনো অবস্থাতেই তৌহিদী জনতা আসতে দেবে না। এই পবিত্র ভূমিতে আল্লাহর দুশমনদের প্রবেশ করার যেকোনো প্রচেষ্টা সর্বাত্মক প্রচেষ্টায় প্রতিহত করতে হবে।

গতকাল বিকাল ৩টায় চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক এমএ মান্নান, জেলা পুলিশ সুপার হাফিজ আক্তার, এসপি ডিএসবি রবিউল ইসলাম, হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইশরাত জাহান পান্না, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উত্তর) হাফিজ আক্তারসহ প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা দারুল উলুম হাটহাজারী মাদরাসায় আল্লামা শাহ্ আহমদ শফীর সঙ্গে সাক্ষাত করলে তিনি এই কথা বলেন।

তিনি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের প্রতি প্রশ্ন রেখে বলেন, আপনারাই বলছেন চট্টগ্রামের আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে আছে এবং দেশের অন্যান্য শহর থেকে এখানে শান্তিপূর্ণ অবস্থা বিরাজ করছে। তাহলে পাঁচ দশজন নাস্তিককে চট্টগ্রামে এনে কেন কোটি মানুষের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতাকে অশান্ত করার প্রয়াস চলছে? আপনারা সরকারকে জানান চট্টগ্রামের মানুষ নাস্তিকদের গ্রহণ করবে না।

এদিকে বিকাল ৪টায় চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের প্রশাসক এম.এ. সালাম, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রফেসর মুহাম্মদ ইসমাঈল আল্লামা শাহ্ আহমদ শফীর সঙ্গে সাক্ষাত্ করে চলমান পরিস্থিতি নিয়ে মতবিনিময় করেন। এ সময় নেতারা শাহবাগি আন্দোলনের নেতা ডা. ইমরান এইচ সরকার যাতে ১৩ তারিখ চট্টগ্রামে সমাবেশ করতে না আসে সে জন্য চেষ্টা করবেন বলে আশ্বাস দেন।

এই দিকে ঢাকার একটি পত্রিকা জানায় জাগরণ মঞ্চের ইমরান এইচ সরকারকে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থার মাধ্যমে চট্টগ্রামে আনার ব্যবস্থা নিয়েছে সরকার। ইমরান এইচ সরকার তার ফেসবুক একাউন্টে লিখেছেন, বীর চট্রলার মানুষ প্রমান করবে বারো আউলিয়ার পুণ্যভূমিতে খুনী জামাত শিবির রাজাকারদের কোন স্থান নেই। শহীদদের রক্তস্নাত এই পবিত্র মাটি শুধুমাত্র প্রজন্ম যোদ্ধাদের জন্যই বরাদ্দ থাকবে ১৩ মার্চ। জয় বাংলা!

Advertisements

আলোচনা

কোন মন্তব্য নেই এখনও

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

হেফাজতে ইসলামের খবর

https://banglargangai.wordpress.com/wp-admin/widgets.php#available-widgets

ফরহাদ মজহারের কলাম

Join 253 other followers