এখন পড়ছেন
খবর

নেতাশূন্য কেন্দ্রীয় কার্যালয়

গতকালের ১৮ দলীয় জোটের সমাবেশে ককটেল বিস্ফোরণের পর সমাবেশ পণ্ড হওয়া, নেতাকর্মীদের বিক্ষোভ এবং পরবর্তীতে এ গ্রেপ্তার অভিযান চালানো হয়। গ্রেপ্তার করা হয়েছে বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ বিএনপি ও অঙ্গদলের প্রায় দেড়শতাধিক নেতাকর্মীকে। তাদের মধ্যে আছেন দুই ভাইস চেয়ারম্যান, তিন যুগ্ম মহাসচিব ও বিরোধীদলীয় চিফ হুইপসহ অন্তত অর্ধশতাধিক কেন্দ্রীয় নেতা। যা বাংলাদেশের ইতিহাসে নজিরবিহীন।

গ্রেপ্তার এড়াতে পারা সালাউদ্দিন আহমেদকে সকালে কার্যালয়ে দেখা গেছে। তার সাথে ছিলেন কাযার্লয়ের দারোয়ান ও পিয়ন।বিএনপি-র গ্রেপ্তার

টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রাচারিত এই গ্রেপ্তারের সময়ে রীতিমতো লাঞ্ছিত হয়েছেন কর্মীসহ কয়েকজন নেতা। পুলিশ একের পর এক দরজা ভেঙে তল্লাশি চালায় পুরো কার্যালয়ে। তল্লাশিতে তছনছ হয়েছে আসবাব ও নথিপত্র। অভিযানকালে কার্যালয় থেকে ৬টি হাতবোমা উদ্ধার দেখিয়েছে পুলিশ। এর আগে নয়াপল্টনে ১৮দল আয়োজিত শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ সমাবেশে ঘটেছে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা। এরপরই শুরু হয় পুলিশের অ্যাকশন।

বিএনপি নেতারা দাবি করেছেন, সমাবেশ বানচাল করতেই ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। হামলা করে পুলিশ। এ ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়ার আগ মুহূর্তে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আজ সারাদেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দিয়েছেন। রাতে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে দলের স্থায়ী কমিটি ও ১৮ দলীয় জোটের বৈঠকে আটক নেতা-কর্মীদের মুক্তি না দেয়া হলে ১৮ ও ১৯শে মার্চ দু’দিনের হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। এ সময় পরিবর্তিত রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে ১৯শে মার্চ পূর্ব ঘোষিত দলের জাতীয় কাউন্সিল স্থগিত ঘোষণা করা হয়। অন্যদিকে গতকালের ঘটনায় বিএনপির তাৎক্ষণিক হরতাল দেয়ায় পুলিশ দাবি করেছে, হরতাল দেয়ার জন্যই সমাবেশে বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে। এদিকে আওয়ামী লীগের  নেতৃত্বাধীন ১৪ দলও এ দাবি করেছে।
গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে রয়েছেন বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান ও ঢাকা মহানগর বিএনপি’র আহ্বায়ক সাদেক হোসেন খোকা, আলতাফ হোসেন চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, যুগ্ম মহাসচিব মোহাম্মদ শাহজাহান, আমানউল্লাহ আমান, রিজভী আহমেদ, বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুক, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন, জোটের শরিক দল ডেমোক্রেটিক লীগের মহাসচিব সাইফুদ্দিন মনি, বিএনপি’র সহ-দপ্তর সম্পাদক আবদুল লতিফ জনি, সহ-তথ্য বিষয়ক সম্পাদক হাবীবুর রশীদ হাবিব, জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আবেদ রাজা, মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, মুর্তজা ভুট্টো, মাহবুবুল হক নান্নু, ঢাকা মহানগর বিএনপি’র যুগ্ম আহ্বায়ক কাজী আবুল বাশার, শরীয়তপুর জেলা বিএনপি’র সভাপতি জামাল শরীফ হিরু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মনিরুজ্জামান, মৎস্যজীবী দলের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল আউয়াল খান, তরুণদল ঢাকা দক্ষিণের আহ্বায়ক শাহমান শাহদৎ, কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের কর্মচারী আবদুস সোবহান, যুবদল নেতা তাইফুল ইসলাম টিপু, ফাহিম হোসেন, ডা. আশফাকুর রহমান শেলী প্রমুখ।

Advertisements

আলোচনা

কোন মন্তব্য নেই এখনও

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

হেফাজতে ইসলামের খবর

https://banglargangai.wordpress.com/wp-admin/widgets.php#available-widgets

ফরহাদ মজহারের কলাম

Join 253 other followers